নিউটাউন পর্ন ফিল্ম কাণ্ডে নয়া মোড়

0
289

মেট্রোলাইভ নিউজ ডেস্ক: কেবল বোম্বে নয় কলকাতাতেও চলত পর্ন ছবির শুটিং! এমনটাই জানা গেছে নিউটাউনে পর্ন ফিল্ম কাণ্ডে দুই ধৃতকে জেরা করার পর। ধৃতদের বয়ানের ভিত্তিতে শনিবার রাতে বালিগঞ্জের একটি বাড়িতে হানা দিয়ে ঘটনার সঙ্গে যুক্ত থাকার অভিযোগে বাড়ির মালিককে গ্রেফতার করেছে নিউটাউন থানার পুলিশ। জানা গিয়েছে, বালিগঞ্জের ওই বাড়িতেই নাকি শুটিং হত পর্ন ফিল্মের।

সূত্রের খবর, পর্ন ফিল্ম কাণ্ডে অভিযুক্ত ফটোগ্রাফার মৈনাক ঘোষকে জিজ্ঞাসাবাদ করার পরই নাকি বালিগঞ্জের এই ঠিকানা পায় পুলিশ। সেই মতো শনিবারই বালিগঞ্জের গড়ফা এলাকার শরৎ পার্ক রোডের একটি বাড়িতে তল্লাশি চালানো হয়। বাড়ির মধ্যে নীল ছবির শুটিংয়ের জন্য যাবতীয় সমস্ত ক্যামেরা যন্ত্রপাতি পাওয়া যায় এবং সেগুলো বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে। বাড়ির মালিক, মৈনাক এবং পর্নকাণ্ডে ধৃত অভিনেত্রীকে মুখোমুখি বসিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার পরিকল্পনা রয়েছে পুলিশের। এই মামলায় চুঁচুড়া থেকে শুভঙ্কর দে নামে আরও এক ফটোগ্রাফারকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, কিছু দিন আগেই এক যুবতী নিউটাউন থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। তিনি জানান, মডেলিংয়ে বড় সুযোগ করে দেওয়ার নামে তাঁর ‘বোল্ড’ ছবি তুলে এখন তা পর্ন সাইটে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। পুলিশ তাঁর সঙ্গে কথা বলে জানতে পারে, ফেসবুকে এক ফটোগ্রাফারের সঙ্গে ওই তরুণীর পরিচয় হয়েছিল। সেখান থেকেই ফটো শ্যুটের প্রস্তাব আসে। গ্ল্যামার দুনিয়ার হাতছানিতে সাড়া দিয়ে ওই তরুণীও ছবি তুলতে রাজি হন। এর পরই বালিগঞ্জের একটি বাড়িতে ছবি তোলার ব্যবস্থা করা হয়।

পরবর্তীকালে তদন্ত করে জানা যায়, মডেলদের এই শ্যুট করা ভিডিয়ো নাকি পৌঁছে যেত সিঙ্গাপুরে যশ ঠাকুর ওরফে অরবিন্দ শ্রীবাস্তবের হাতে। এই যশ একটি ওটিটি প্ল্যাটফর্মের সঙ্গে যুক্ত। আর সব থেকে চাঞ্চল্যকর তথ্য হল, এই যশ ঠাকুরের সঙ্গে বলিউড তারকা শিল্পা শেঠির স্বামী রাজ কুন্দ্রার নামও জড়িয়ে রয়েছে। এই মুহূর্তে যিনি পর্ন কাণ্ডে যুক্ত থাকার অভিযোগে মুম্বই পুলিশের ক্রাইম ব্রাঞ্চের হেফাজতে রয়েছেন। যশ অবশ্য রাজের সঙ্গে যুক্ত থাকার কথা অস্বীকার করেছেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে