নাড্ডা বার্তালাপ এর পরেই কি অবস্থান বদল করলেন বাবুল?

0
147

মেট্রোলাইভ নিউজ ডেস্ক: শনিবার দুপুরে সোশ্যাল মিডিয়ায় আচমকাই রাজনীতির ময়দান ছাড়ার ঘোষণা করেন প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়। আর তারপর থেকেই রাজনৈতিক মহলে জল্পনা তুঙ্গে। বাবুল তাঁর পোস্টে জানিয়েছিলেন বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্বের কাছে আবেদন জানিয়েও কোনও লাভ হয়নি। আর তাই এ ভাবে সোশ্যাল মিডিয়ায় সরাসরি রাজনীতি ছাড়ার ঘোষণা। তবে ঘটনার আবহে পরিবর্তন হয় এর পরেই। অনুযোগের ভরা বাবুলের একাধিক সোশ্যাল মিডিয়া পোস্ট সামনে আসার পর রাতেই তাঁকে ফোন করেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা। সূত্রের খবর, শনিবার রাতে ফোন যায় বাবুলের কাছে। জে পি নাড্ডা বাবুলকে বলেন, এ ভাবে সোশ্যাল মিডিয়ায় হতাশা প্রকাশ করা তাঁর জন্য বা দলের জন্য মোটেই খুব একটা সুখকর নয়। নাড্ডা জানান, বাবুল যদি থেকে যান, তাহলে বঙ্গ বিজেপিতে তাঁর একটা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা থাকবে বলেই আশা করা হবে। তবে, দলের তরফে বাবুলকে কোনও পদ দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেননি নাড্ডা।

এরপর কি হল তা কিন্তু খোলসা করেননি বাবুল। রাজনৈতিক মহলে আলোচনা তবে কি নাড্ডা বার্তা পেয়ে কি গোঁসা কমল বাবুলের? নাকি এখনও তিনি নিজের অবস্থেনেই অনড়? বাবুলের মান ভঞ্জন হয়েছে কিনা বলা না গেলেও কিছুটা হলেও যে বাবুলের অবস্থানের পরিবর্তন ঘটেছে তার ইঙ্গিত মিলেছে। রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা বলছেন এবার কি হয় সেটাই দেখার।

আমি সাংসদ পদ থেকেও ইস্তিফা দিচ্ছি, এই লাইনটা জুড়তে গিয়ে, অরিজিনাল লেখাটা থেকে একটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ লাইন মুছে গেছিলো !!…

Posted by Babul Supriyo on Saturday, July 31, 2021

রাত ১ টা নাগাদ নিজের ফেসবুকে ফের একটি পোস্ট করেন বাবুল সুপ্রিয়। সেখানে দেখা যায়, ‘অন্য কোনও দলে যাচ্ছি না। তৃণমূল, কংগ্রেস, সিপিএম কোথাও নয়। কনফার্ম করছি। কেউ আমায় ডাকেওনি, আমিও কোথাও যাচ্ছি না।’ শনিবার তাঁর করা প্রথম ফেসবুক পোস্ট থেকে এই কয়েকটি লাইন হঠাৎ করেই উধাও হয়ে যায়। সেখানে তিনি দাবি করেন অরিজিনাল পোস্টে একটি লাইন জুড়তে গিয়েই নাকি গুরুত্বপূর্ণ অংশ মুছে ফেলেছেন তিনি। নতুন করে আবারও সেই লাইনগুলি লিখে দেন বাবুল। তিনি জানিয়েছেন, ‘আমি সাংসদ পদ থেকেও ইস্তিফা দিচ্ছি’ এই লাইনটা এডিট করে জুড়তে গিয়েই মুছে গিয়েছে কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ লাইন। আদতে বাবুলের এই ব্যাখ্যা কি যথেষ্ট ? প্রশ্ন উঠছেই রাজনৈতিক মহলে। এডিটেড পোস্টে প্রথমবারের মতো আর তৃণমূল বা কংগ্রেসের নাম করেননি তিনি। শুধু লিখেছেন, ‘সারাজীবন একটাই দলকে সাপোর্ট করেছি- মোহনবাগান, একটাই দল করেছি- বিজেপি।’ সুতরাং, কোনও দল থেকে ডাক আসেনি এমন কথা বাবুলের পোস্ট থেকে উধাও।

একুশের বিধানসভা নির্বাচনে হেরে যাওয়ার পরই তাল কাটে বাবুলের। টালিগঞ্জে প্রার্থী হয়ে হেরে যান বাবুল। এর কয়েক মাসের ব্যবধানে প্রধানমন্ত্রীর সম্প্রসারিত মন্ত্রিসভায় জায়গা হয়নি তাঁর। আর তার পর থেকেই তাল কাটতে শুরু করেছে। শনিবার প্রথম পোস্টে সরাসরি রাজনীতি ছাড়ার কথা জানিয়েছেন বাবুল। তারপর থেকেই জল্পনা চরমে। যদিও বঙ্গ বিজেপির দাবি, এখনও পদত্যাগ করেননি বাবুল। দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘কে কোথায় যাচ্ছেন, কী করছেন, কখন রাজনীতি করবেন, কখন করবেন না, সেটা তাঁর ব্যক্তিগত ব্যাপার। এই নিয়ে আমার কিছু বলার নেই।’

সবমিলিয়ে রাজনৈতিক মহলে প্রশ্ন এখন একটাই, কোনও রাজনৈতিক দলে যোগ না দেওয়ার সিদ্ধান্ত থেকে কি সরে আসছেন বাবুল? নাকি পোস্ট সামনে আসতেই ডাক এসেছে কোনও দল থেকে?

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে