নিজ নিজ রাজ্যে বিজেপিকে আটকানোর প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে বললেন তেজস্বী যাদব

0
106

মেট্রো লাইভ নিউজ ডেস্ক: ‘রাষ্ট্রমঞ্চ’ এর বৈঠকের মাধ্যমে দিল্লির মসনদ থেকে মোদিকে হটানোর প্রক্রিয়া শুরু করেছে সমস্ত আঞ্চলিক দলগুলি। এবার স্ট্র‍্যাটেজি বদলে নিজ নিজ রাজ্যতেই একাধিক ইস্যুতে বিরোধিতা করবে সমস্ত রাজনৈতিক দলগুলি। সোমবার জোটের সমীকরণ নিয়ে এমনটাই জানালেন আরজেডি নেতা তেজস্বী যাদব।

লালু পুত্রের কথায়, ঘরোয়াভাবে প্রত্যেকটি রাজনৈতিক দলের মধ্যে আলোচনা শুরু হয়েছে। প্রত্যেকটি রাজনৈতিক দল বিজেপিকে আটকানোর প্রক্রিয়া শুরু করেছে। কেন্দ্রের একাধিক ইস্যুর বিরোধিতা করেই এবার লোকসভার লড়াই শুরু করতে চাইছে সকলেই। এর জন্য ডিএমকে, এসপি, এনসিপি, জেএমএম, শিবসেনা, বাম বিজেডি সকলকে একজোট হওয়ার বার্তা দিয়েছেন তিনি।

ইতিমধ্যেই উদ্ধভ ঠাকরে, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, অখিলেশ যাদব এবং তেজস্বী যাদবদের মতো নেতারা কেন্দ্রের বিরোধিতায় সরব হয়ে রাজপথে নেমেছেন। মোদি বনাম প্রধানমন্ত্রীর মুখ কে? এর উত্তরে মানুষকে ব্যবহার করতে চাইছে বিভিন্ন দল। মোদি বনাম মুদ্দা ইস্যুতেই ঘুটি সাজাতে চাইছে ছোট দলগুলি। তেজস্বী বলেন, বিজেপি এমনভাবে গোটা বিষয়টাকে প্রোজেক্ট করতে চাইছে যেন ভারতে আগে কোনও প্রধানমন্ত্রী ছিল না।

তেজস্বীর কথায়, বিজেপিকে প্রতিহত করতে আঞ্চলিক দলগুলির ভুমিকা গুরুত্বপূর্ণ, তা একাধিক বিধানসভা নির্বাচনে প্রমাণ হয়ে গেছে। তবে কংগ্রেস ছাড়া জোট সম্ভব নয় বলে দাবী করেছেন তেজস্বী। তিনি বলেন, কংগ্রেস ছাড়া বিজেপির বিরুদ্ধে লড়াই সম্ভব নয়। মোটের ওপর ২০০ টির বেশী আসনে মুখোমুখি লড়াই হবে কংগ্রেস বিজেপির।

গত মাসে নির্বাচনী স্ট্র‍্যাটেজিস্ট প্রশান্ত কিশোরের সঙ্গে এনসিপি প্রধানের দুই দফার বৈঠকের পরেই শুরু হয় ২৪ এর লোকসভার জোটের সমীকরণ৷ শরদ পাওয়ার বাসভবনে বৈঠক করেন আট রাজনৈতিক দলের নেতারা। এরপর আরও এক দফায় চলে পাওয়ার-পিকে বৈঠক। তারপর থেকে বিরোধী জোট নিয়ে আলোচনা স্থগিত থাকে। সোমবার তেজস্বীর মন্তব্যের পর তা আরও একবার মাথাচাড়া দিয়েছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে