বান্দিপোরায় সেনার গুলিতে কুখ্যাত ১ পাকিস্তানি জঙ্গি সহ খতম ৩ জন

0
300

মেট্রোলাইভ নিউজ ডেস্ক: সেনা-জঙ্গি গুলির লড়াইয়ে ফের উত্তপ্ত ভূস্বর্গ। তবে দীর্ঘক্ষণ ধরে চলতে থাকা দু’পক্ষের গুলির লড়াইয়ে ১ কুখ্যাত পাক জঙ্গি সহ ৩ জঙ্গিকে খতম করে সন্ত্রাস দমনে ফের সফলতা অর্জন করেছে ভারতীয় সেনা।

পুলিশ সূত্রে খবর, সোমবার রাতে বান্দিপোরা জেলার চান্দাজি এলাকায় জঙ্গিদের লুকিয়ে থাকার খবর পায় স্থানীয় পুলিশ। সঙ্গে সঙ্গে সেই খবর তারা পৌঁছে দেন সেনাবাহিনীর কাছে। গোপন সূত্রে পাওয়া সেই খবরের ভিত্তিতে মঙ্গলবার ভোর থেকে সেনা ও স্থানীয় পুলিশের যৌথবাহিনী এলাকায় তল্লাশি অভিযান শুরু করে। নিরাপত্তা বাহিনীর উপস্থিতি বুঝতে পেরে তাদের উপর গুলি চালাতে শুরু করে জঙ্গিরা। পাল্টা আক্রমণ করে যৌথবাহিনী। ঘটনায় মৃত্যু হয় ৩ জঙ্গির। পরে জানা যায় মৃতদের মধ্যে একজন কুখ্যাত পাকিস্তানি জঙ্গি বাবর আলি। পাকিস্তানের অন্তর্গত পাঞ্জাবের উগারা জেলার বাসিন্দা ছিল সে। উপত্যকায় একাধিক নাশকতার ঘটনার সঙ্গে জড়িত ছিল সে। তবে এখনও পর্যন্ত মৃত বাকি দুই জঙ্গির পরিচয় জানা যায়নি।

এদিনের এনকাউন্টার প্রসঙ্গে জম্মু-কাশ্মীর পুলিশের তরফে প্রকাশিত বিবৃতিতে ডিজিপি দিলবাগ সিং জানিয়েছেন, গত ২৩ ও ২৪ জুলাই শোকবাবা জঙ্গল এলাকায় জঙ্গিদের লুকিয়ে থাকার খবর পেয়ে অভিযান চালায় সেনা ও পুলিশের যৌথবাহিনী। এনকাউন্টারে একজন পাক জঙ্গি সহ ৩ জনকে খতম করেন তারা। কিন্তু সুযোগ বুঝে সেখান থেকে পালিয়ে যায় আরেক পাকিস্তানি জঙ্গি। দীর্ঘদিন তাকে খুঁজে পাওয়ার জন্যে একাধিক এলাকায় চিরুনি তল্লাশি চালানো হয়। অবশেষে জানা যায় চান্দাজি এলাকায় গা ঢাকা দিয়ে বসে আছে সে। এদিনের এনকাউন্টারে তার মৃত্যুতে উপত্যকায় জেহাদি নেটওয়ার্কে বড়সড় ধাক্কা লাগলো বলেই মত ডিজিপি সিংয়ের।

প্রসঙ্গত, আগামী ১৫ আগস্ট দেশজুড়ে পালিত হবে ৭৫তম স্বাধীনতা দিবস। এদিকে, ভারতে বড়সড় নাশকতার ছক কষছে বলেই মনে করছেন গোয়েন্দারা। কারণ, কিছুদিন ধরে ভারত-পাক সীমান্তবর্তী এলাকাগুলিতে দেখা মিলছে একের পর এক ড্রোনের। যদিও ১৫ আগস্টের কথা মাথায় রেখেই গোটা উপত্যকাজুড়ে নিরাপত্তা আরও কয়েকগুণ বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু একের পর এক জঙ্গি লুকিয়ে থাকার খবর প্রকাশ্যে আসতেই চিন্তা বেড়েছে প্রতিরক্ষা মন্ত্রকেরও। তবে বিশ্লেষকদের মতে, কিছুদিন আগেই সন্ত্রাস দমন অভিযানে জইশ প্রতিষ্ঠাতা মাসুদ আজহারের ঘনিষ্ঠ ও জঙ্গি সংগঠনটির শীর্ষ কমান্ডারকে খতম করার পর মঙ্গলবার ফের আর এক জঙ্গির নিকেশের ঘটনা সেনাবাহিনীর জন্যে বড়সড় সাফল্য তো অবশ্যই।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে